ডায়াবেটিস ডায়েট:

চার ধরনের ফল রয়েছে, যেগুলো রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে উচ্চ রক্তচাপের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে, আপনি সেই ঝুঁকিতে!ডায়াবেটিস ডায়েটের পরিবর্তন রক্তের চিনির উপসর্গ যেমন ক্লান্তি ও অতিরিক্ত মুত্রপাত ইত্যাদির হাত থেকে বাঁচায়।

কিন্তু কিছু খাবার রক্তে শর্করার মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। এই ৪টি হচ্ছে ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর খাবার।ডায়াবেটিস কেন হয়?অগ্ন্যাশয় হরমোন ইনসুলিনের পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদন না করার কারণে বা শরীর ইনসুলিনের প্রতি প্রতিক্রিয়া না করার কারণে ডায়াবেটিস হয়।

রক্তে চিনিকে ব্যবহারযোগ্য শক্তিতে রূপান্তর করতে ইনসুলিনের প্রয়োজন হয়।পর্যাপ্ত ইনসুলিন ছাড়া, রোগীদের হৃদরোগ এবং স্ট্রোক সহ কিছু মারাত্মক জটিলতা হওয়ার ঝুঁকি থাকে। এই কারণেই আপনার ডায়াবেটিস থাকলে আপনার প্রতিদিনের খাবারে কিছু পরিবর্তন আনা একেবারে অপরিহার্য।সাধারণত ফল রোগীদের জন্য ভালো উপকারি কিন্তু সব ক্ষেত্রে নয়।উদাহরণস্বরূপ তরমুজ, তরমুজে একটি উচ্চ গ্লাইসেমিক সূচক (GI) আছে, তাই ডায়াবেটিক রোগীদের তরমুজ এড়িয়ে চলা উচিত।গ্লাইসেমিক ইনডেক্স হল একটি পরিমাপ যে একটি খাবার কত দ্রুত আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে।আপনার ডায়াবেটিস থাকলে উচ্চ জিআই খাবার খাওয়া অনেক টা ঠিক আছে মানে নিরাপদ, তবে চিকিৎসকরা বিকল্প খাবার পরামর্শ দিয়ে থাকে।মেডিকেল ওয়েবসাইট মেডিকেল নিউজ টুডে বলেছে যে, “সাধারণত, একজন ব্যক্তির তাদের খাদ্য তালিকা থেকে ফল বাদ দেওয়া উচিত নয়,”।

“এছাড়া, 2017 সালে একটি গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে ফলমূল খাওয়ার ফলে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে। “তবে, যারা ইতিমধ্যেই ডায়াবেটিস আছে তাদের নিম্নলিখিত ফলগুলি খাওয়ার ক্ষেতে একটি সীমাবদ্ধতা রাখা উচিত।”যদি একটি খাবারের জিআই স্কোর 70 থেকে 100 এর মধ্যে থাকে, তবে এতে চিনির পরিমাণ বেশি থাকে। এই পরিসরে স্কোর সহ কিছু ফলের মধ্যে রয়েছে তরমুজ, শুকনো খেজুর, আনারস এবং অতিরিক্ত পাকা কলা।

“তবে কিছু ফল আছে যেগুলো ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বিশেষ উপকারী।এগুলো যেমন আপেল, এপ্রিকট, বেরি এবং আম সবই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আদর্শ খাবার।তরতাজা ফলমুলে অতিরিক্ত শর্করা থাকে না, যার কারণে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়তে পারে না। কিছু ফল ফাইবার সমৃদ্ধ, যা রক্ত চলাচলে চিনির প্রবাহ কমিয়ে দেয়।আর, আপনি ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে আছেন কিনা তা জানা সবসময় সহজতর হয় না, কারণ লক্ষণগুলি সেভাবে বুঝে উঠা যায় না।ডায়াবেটিসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে ক্লান্তি, কাটা বা ক্ষত যা সারাতে বেশি সময় লাগে এবং ক্রমাগত পিপাসা অনুভব করা।আপনি যদি ডায়াবেটিসের লক্ষণ সম্পর্কে চিন্তিত হন তবে দেরি না করে, সরাসরি একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Author

Afroza Khatun Riju

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Shopping Cart